৮ টি স্টেপে আপনার শখকে কাজে লাগিয়ে অনলাইন শপ তৈরী করুন

৮ টি স্টেপে আপনার শখকে কাজে লাগিয়ে অনলাইন শপ তৈরী করুন
Share This Post

নিজের প্যাশনকে লাভজনক ব্যবসা’তে রুপান্তর করার একটি চমৎকার পদ্ধতি হচ্ছে অনলাইন শপ তৈরি করা।

আপনার শখগুলো যে ধরণের বিজনেস বা প্রোডাক্টের সাথে সম্পর্কিত থাকুক না কেন, সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি আপনার অনলাইন শপে সাফল্য অর্জন করতে পারবেন। 

আজকে আপনি এমন ৮টি স্টেপ পেতে যাচ্ছেন, যেগুলোর মাধ্যমে আপনি আপনার শখকে কাজে লাগিয়ে একটি লাভজনক অনলাইন শপ তৈরি করতে পারবেন। 

স্টেপ ১- শখ শনাক্ত করা এবং নির্দিষ্ট একটি বেছে নেওয়া 

আপনার শখকে কাজে লাগিয়ে একটি অনলাইন শপ তৈরি করার প্রথম ধাপটি হচ্ছে শখগুলো শনাক্ত করা।

আপনার যে শখগুলো উপভোগ করেন এবং যেগুলো সম্পর্কে প্রায় অনেক কিছুই জানেন, তার একটি তালিকা তৈরি করার মাধ্যমে আপনার শখগুলো খুব সহজেই শনাক্ত করতে পারেন। 

সেই তালিকা থেকে যেকোনো নির্দিষ্ট একটি শখ আপনাকে বাছাই করতে হবে, আপনার অনলাইন শপের জন্য যেটার উপর ফোকাস করবেন। 

তবে অবশ্যই এমন শখকে বাছাই করবেন যেটাতে আপনিই সত্যিই আনন্দ পান এবং অভিজ্ঞতা আছে। এর মাধ্যমে ইউনিক প্রোডাক্ট এবং কন্টেন্ট তৈরি করা সহজ হবে এবং এছাড়াও এটি আপনাকে একটি প্রতিযোগীতামূলক বাজারে দাঁড় করাতে সাহায্য করবে। 

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • তালিকায় এমন শখগুলো রাখুন যেগুলো আপনি অনেক উপভোগ করেন এবং সেগুলো সম্পর্কে অনেক কিছু জানেন, বুঝেন। 
  • সবচেয়ে আনন্দ পান কোন শখে? এবং কোনটা আপনার মধ্যে বিরক্তি ভাব আনেনা? এগুলো বিবেচনা করুন। 
  • ভিন্ন ভিন্ন শখে আপনার স্কিল এবং অভিজ্ঞতার কথা চিন্তা করুন।
  • তালিকা করা শখগুলো নিয়ে মার্কেটে রিসার্চ করুন এবং চাহিদা যাচাই করুন।
  • এমন একটি শখ বাছাই করুন যেটি ইউনিক এবং আপনার অনলাইন শপের সেলিং বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। 

স্টেপ ২- নিশ নির্ধারণ করা

নির্দিষ্ট একটি শখ বাছাই শেষে এবার সময় হয়েছে সেই শখের উপর ভিত্তি করে নিশ নির্ধারণ করা। 

উদাহরণস্বরুপ, আপনার শখ যদি হয় পেইন্টিং, আপনার নিশ হবে watercolor paintings অথবা oil paintings।

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • নিজের আগ্রহ এবং প্যাশনের উপর ভিত্তি করে এমন একটি নিশ বাছাই করুন যেটা করতে আপনার সত্যিকার অর্থে ভালো লাগে।
  • মার্কেটে ভালো চাহিদা আছে এমন সম্ভাব্য কিছু নিশ তালিকা করুন।
  • যেকোনো একটি নিশ বাছাই করার আগে বাজারে এই নিশের প্রতিযোগীতা কেমন তা দেখুন এবং আপনি তাদের সাথে প্রতিযোগীতা করে থাকতে পারবেন কি না তা চিন্তা করুন। 
  • আপনার স্কিল এবং অভিজ্ঞতা বিবেচনা করুন।
  • সময় এবং অর্থ ব্যয় করার পূর্বে বাছাই করা নিশ টেস্ট করে নেওয়া প্রয়োজন। 

স্টেপ ৩- মার্কেট রিসার্চ

আপনার নিশের মার্কেট চাহিদা কেমন তা রিসার্চ করুন। আপনার শখ সম্পর্কিত কী নিয়ে লোকজন সার্চ করে এবং জানতে চায় সেগুলো সোশ্যাল মিডিয়া এবং Google Trends এর মতো টুলস ব্যবহার করে জানার চেষ্টা করুন। 

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • বয়স, লিঙ্গ, আগ্রহ, এবং পছন্দের উপর ভিত্তি করে টার্গেট অডিয়েন্স শনাক্ত করা। 
  • প্রতিযোগীদের পণ্য, পণ্যের দাম, এবং মার্কেটিং স্ট্রাটেজিসহ তাদের গ্যাপগুলো শনাক্ত করা এবং সেই গ্যাপগুলো আপনি নিজে পূরণ করে তাদের থেকে আলাদাভাবে নিজের অনলাইন শপ প্রমোট করা। 
  • সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে কাস্টমারদের সাথে যুক্ত হওয়া এবং তাদের থেকে বিভিন্ন ফীডব্যাক নেওয়া। 
  • আপনার নিশের উপর বিভিন্ন সফল প্রোডাক্ট এবং প্রাইসিং স্ট্রাটেজি রিসার্চ করার জন্য জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটপ্লেইস ব্যবহার করা যেমন Esty অথবা Amazon। 
  • Google Trends এর মতো আরও বিভিন্ন ধরণের টুলস ব্যবহার করে আপনার শখ এর সাথে সম্পর্কিত প্রোডাক্টের সার্চ ভলিওম এবং ইন্টারেস্ট রিসার্চ করতে পারেন। 

স্টেপ ৪- একটি বিজনেস প্ল্যান তৈরি করা

আপনার গোল, টার্গেট অডিয়েন্স, মার্কেটিং স্ট্রাটেজি, ফাইনান্সিয়াল বিবরণি, এবং আপনার অনলাইন বিজনেস লঞ্চিং টাইমলাইন, ইত্যাদি- এইসব অন্তর্ভুক্ত করে একটি বিজনেস প্ল্যান তৈরি করুন। 

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • বিজনেস গোল শনাক্ত করা।
  • আপনার প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিসের একটি বিস্তারিত ব্যাখ্যা।
  • টার্গেট মার্কেট এবং অডিয়েন্স শনাক্ত।
  • একটি সেল এবং মার্কেটিং স্ট্রাটেজি তৈরি করা।

স্টেপ ৫- প্লাটফর্ম বাছাই করা

এবার আপনার অনলাইন শপ তৈরি করার জন্য একটি ই-কমার্স প্লাটফর্ম বাছাই করুন।

অনলাইন শপের জন্য কিছু জনপ্রিয় প্লাটফর্ম হচ্ছে Shopify, WooCommerce, এবং Etsy. 

প্লাটফর্ম বাছাই করার সময় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে এর ইন্টারফেস ইউজার-ফ্রেন্ডলি কি-না, সহজে কাস্টমাইজ করা যায় কি-না, এবং সহজে অন্য টুলস এর সাথে ব্যবহার করা যায় কি-না। 

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • বিজনেস গোলের উপর ভিত্তি করে প্লাটফর্ম বাছাই করা।
  • যে প্লাটফর্মে অডিয়েন্স বেশি এবং যেটি ব্যবহার সহজে ব্যবহার করা যায়, সেটি বিবেচনায় রাখা।
  • শক্তিশালী সিকুরিটি দেয় এমন প্লাটফর্ম বাছাই করা। 

স্টেপ ৬- আকর্ষণীয় এবং ইউজার-ফ্রেন্ডলী একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা

এমন একটি আকর্ষণীয় ওয়েবসাইট তৈরি করুন যেটি আপনার শখ এবং পণ্যগুলোকে সুন্দরভাবে তুলে ধরবে।

সাইটে হাই-কোয়ালিটি ছবি, কালার, ভিডিও ব্যবহার করুন এবং এটি গ্রাহক সহজে ব্যবহার করতে পারবে কি-না তা নিশ্চিত করুন। 

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • যথাযথ ইনফরমেশনসহ ওয়েবসাইটের ডিজাইন সিম্পল এবং স্বচ্ছ রাখা।
  • ওয়েবসাইটে হাই-কোয়ালিটি ছবি, ভিডিও, এবং গ্রাফিক ব্যবহার করা।
  • ওয়েবসাইট মোবাইল-ফ্রেন্ডলী কি-না এবং সকল ধরণের ডিভাইসে এবং স্ক্রিনে সাপোর্টে করে কি-না তা নিশ্চিত করা।
  • নিয়মিত আপডেট করা।

স্টেপ ৭- বোধগম্য প্রোডাক্ট বিবরণ লিখা

আপনার প্রোডাক্টের বিবরণ লিখার সময় তা বিস্তারিতভাবে লিখা এবং তা যেন গ্রাহক সহজে পড়তে পারে এবং বুঝতে পারে তা নিশ্চিত করা।

এমনভাবে বিবরণ লিখার চেষ্টা করতে হবে যেন তা সরাসরি টার্গেট অডিয়েন্সের সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়। 

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • প্রোডাক্টের ফিচার এবং উপকারীতে যথাযথভাবে তুলে ধরা।
  • সহজে পড়তে পারার জন্য বুলেট পয়েন্ট ব্যবহার করা।
  • গ্রাহকের সাথে বিশ্বাস গড়ে তুলতে প্রোডাক্টের সাথে সোশ্যাল প্রুফ অন্তর্ভুক্ত করা যেমন কাস্টমার রিভিও অথবা রেটিং। 

স্টেপ ৮- বিজনেস প্রমোট করা 

ওয়েবসাইট ট্রাফিক এবং সেল বৃদ্ধির করার জন্য বিভিন্ন উপায়ে বিজনেস প্রমোট করা। যেমন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা, ই-মেইল মার্কেটিং করা, এবং অন্যান্য প্রোমোশনাল ট্রিক্স ব্যবহার করা।

এই স্টেপের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকরী কিছু টিপস- 

  • একটি শক্তিশালী ব্র্যান্ড আইডেনটিটি তৈরি করা যেটি আপনার বিজনেস ভ্যালু এবং অফারিং প্রদর্শন করে। 
  • এমন মার্কেটিং স্ট্রাটেজি ডেভেলপ করা যার মধ্যে অনলাইন এবং অফলাইন উভয় অন্তর্ভুক্ত। 
  • অসংখ্যা অডিয়েন্সের কাছে পৌছাতে সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম ব্যবহার করা। 
  • অর্গানিক ট্রাফিক বৃদ্ধি করতে ওয়েবসাইটকে সার্চ ইঞ্জিনের জন্য অপ্টিমাইজ করা। 
  • মূল্যবান এবং প্রয়োজনীয় কন্টেন্ট শেয়ার করা যা টার্গেট অডিয়েন্সের জন্য শিক্ষামূলক এবং তথ্যবহুল। 

উপসংহার 

আশাকরি বুঝতেই পারছেন, নিজের শখকে কাজে লাগিয়ে অনলাইন শপ তৈরি করার উল্লিখিত ৮টি স্টেপ কার্যকর করা খুবই সহজ।

তবে এক্ষেত্রে আপনার ডেডিকেশন থাকতে হবে, পরিশ্রম করার মানসিকতা থাকতে হবে। 

যথাযথভাবে উল্লিকিত স্টেপগুলো পালন করতে পারলে আপনি সহজেই আপনার অনলাইন শপে সাফল্য পেতে পারেন। 

Don't wait!
Get the expert business advice You need in 2022

It's all include in our newsletter!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More To Explore
ডিজিটাল মার্কেটিং এ নিশ বেজড কম্পিটিটর রিসার্চ কিভাবে করবেন
Marketing

ডিজিটাল মার্কেটিং এ নিশ বেজড কম্পিটিটর রিসার্চ কিভাবে করবেন?

আপনার বিজনেস নিশ কি হবে? কি নিয়ে কাজ করবেন? বা কোন মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজিই এপ্লাই করবেন। সব কিছু সিলেক্ট করার আগে মোস্ট ইম্পর্ট্যান্ট ফ্যাক্ট হচ্ছে কম্পিটিটর

প্যাশনকে প্রিন্ট-অন-ডিমান্ড সাকসেস এ পরিণত করুন
Marketing

প্যাশনকে প্রিন্ট-অন-ডিমান্ড সাকসেস এ পরিণত করুন

জীবনে সাকসেসফুল হতে হলে অবশ্যই আপনাকে আপনার যেকোনো ধরনের কাজের প্রতি দৃঢ় প্যাশন গড়ে তুলতে হবে। আমাদের সকলের কিছু ভালো লাগার জিনিস রয়েছে যেমন ছবি আঁকা।