FOMO Marketing কী , সেল বৃদ্ধিতে FOMO Marketing কিভাবে করবেন ?

FOMO Marketing কী , সেল বৃদ্ধিতে FOMO Marketing কিভাবে করবেন ? (Fear of Missing Out)
Share This Post

দারাজের কল টু অ্যাকশন মেসেজ গুলোর কথা মনে পরে? কিংবা সীমিত সময়ের অফার এর কথা? অথবা যেকোনো কোম্পানি বা বিজনেস পেজ গুলোর স্পেশাল অফার, যেখানে আপনাকে দ্রুত কোনো প্রোডাক্ট কেনার জন্য তাগাদা দেয়া হয়। কিছু দিনের মধ্যেই স্টক ফুরিয়ে যাওয়ার নোটিশ পাঠানো হয়। বলছিলাম বর্তমান যুগের অন্যতম ট্রিকি মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি, FOMO marketing অর্থাৎ Fear of missing out এর কথা।  

ইন্টারনেটের ক্রমবর্ধমান ডিজিটাল যুগে, মার্কেটার রা তাদের টার্গেটেড  দর্শকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে এবং সেল বাড়াতে, নতুন নতুন সব উদ্ভাবনী কৌশল এপ্লাই করছে। FOMO marketing ও এমন ই একটি কৌশল যা সাম্প্রতিক বছরগুলিতে বেশ খ্যাতি অর্জন করেছে। FOMO, বা “মিসিং আউটের ভয়,” একটি পাওয়ারফুল মনস্তাত্ত্বিক ট্রিগার যা মানুষকে মেন্টালি ইনফ্লুয়েন্স করে প্রোডাক্ট কেনার জন্য। এই ব্লগে, আমরা FOMO marketing কি, কিভাবে কাজ করে, এবং এর কার্যকারিতা সম্পর্কে কিছু স্ট্যাটিসটিক্স তুলে ধরবো। 

FOMO Marketing কি? 

FOMO marketing হল জনপ্রিয় এবং এক্সাইটিং কোনো কিছুর অংশ হওয়ার জন্য মানুষের অন্তর্নিহিত  ইচ্ছাকে কাজে লাগানো। এখানে মূলত একটি সীমিত সময়ের অফার, বা একটি ট্রেন্ডিং পণ্য, কিংবা একটি ইউনিক এক্সপেরিয়েন্স মিস করার ভয় কে ট্যাপ করে মার্কেটিং করা হয়৷

FOMO Marketing কি? 

অর্থাৎ, ধরুন একটি কোম্পানি নোটিশ দিল, তারা মাত্র দুইদিনের জন্য এই পন্যটি সেল করতে পারবে। এরপর স্টক আউট হয়ে যাবে। এই মুহুর্তে যাদের ওই প্রোডাক্ট টি প্রয়োজন তারা অবশ্যই ট্রিগার্ড হবে। অন্যদিকে যাদের জন্য পন্যটি আর্জেন্ট নয়, তারাও “পরে না পাওয়ার” ভয়ে এখনই কিনে ফেলতে চাইবে। মোট কথা আপনার Fear of miss out সাইকোলজি কে কাজে লাগিয়ে তারা তাদের পণ্যের মার্কেটিং ও সেল বৃদ্ধির কাজ করিয়ে নিয়েছে। এটাই ছিল FOMO marketing। 

FOMO marketing কিভাবে কাজ করে?

FOMO মার্কেটিং এ মিস আউট ফিয়ার কে কাজে লাগায়। আর এটা করার কিছু মূল কৌশল রয়েছে:

১. সীমিত সময়ের অফার: 

অল্প সময়ের জন্য কোনো ডিল এবং ডিসকাউন্ট দেয়ার মাধ্যমে মানুষের মধ্যে মিস আউট ফিয়ার তৈরী করা হয়৷ Adobe-এর একটি সমীক্ষা অনুসারে, সীমিত সময়ের অফারের ফলে CR বা রূপান্তর হার 14% বৃদ্ধি পায়।

সীমিত সময়ের অফার:

২. কাউন্টডাউন টাইমার: 

ওয়েবসাইট বা ইমেল প্রমোশনে কাউন্টডাউন টাইমার প্রয়োগ করে মানুষের মধ্যে necessity এর ফিলিংস তৈরি করা হয়। ConversionXL এর একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে কাউন্টডাউন টাইমারগুলি 147% দ্বারা রূপান্তর হার বেড়েছে ৷

কাউন্টডাউন টাইমার: 

৩. সোশ্যাল ক্লারিফিকেশন: 

ক্লারিফিকেশন বা প্রমাণ প্রদর্শন করা, যেমন কাস্টমার ডিসকাশন, রেটিং, বা প্রশংসাপত্র, সম্ভাব্য ক্রেতাদের আপনার পণ্য বা সার্ভিস কে বিশ্বাস করতে সাহায্য করে৷ স্পিগেল রিসার্চ সেন্টারের মতে, রিভিউ প্রদর্শন করলে কনভারসন রেট 270% বৃদ্ধি পেতে পারে।

সোশ্যাল ক্লারিফিকেশন

৪. এক্সক্লুসিভ অ্যাক্সেস: 

প্রারম্ভিক অ্যাক্সেস বা এক্সক্লুসিভ মেম্বারশিপের অফার এর মাধ্যমেও গ্রাহকদের স্পেশাল ফিল করানো এবং ইনভলভ করানো হয়। Accenture অনুসারে, 57% ভোক্তারা ক্রয় করার সম্ভাবনা বেশি থাকে যদি তারা এক্সক্লুসিভ অ্যাক্সেস অফার করে।

এক্সক্লুসিভ অ্যাক্সেস

৫. ইউজার এক্সপেরিয়েন্স: 

সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনার পণ্য বা পরিষেবার সাথে তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে গ্রাহকদের উৎসাহিত করার মাধ্যমেও FOMO করা হয়।  নতুন অডিয়েন্স রা বিশ্বাস করতে ও দ্রুত ক্রয় করতে আগ্রহী হয়৷ প্রকৃতপক্ষে, 86% মার্চেন্ট বিশ্বাস করে যে ইউজার এক্সপেরিয়েন্স এর মাধ্যমে তাদের ব্র্যান্ডের মানের উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন হয়েছে। 

ইউজার এক্সপেরিয়েন্স

FOMO marketing স্ট্যাটিসটিক্স

আসুন কিছু পরিসংখ্যান দেখে নেওয়া যাক যেগুলো FOMO marketing কার্যকারিতাকে হাইলাইট করে:

১. বায়িং ইন্টারেসট: 

স্ট্যাটিস্টার একটি সমীক্ষা দেখায় যে 60% ভোক্তা বলেছেন FOMO marketing তাদের কোনো কেনার সিদ্ধান্তকে পজিটিভলি প্রভাবিত করেছে৷

২. ইমেল মার্কেটিং: 

ওমনিসেন্ডের মতে, ইমেলের সাবজেক্ট ফিল্ডে আর্জেন কল টু অ্যাকশন মেসেজের কারণে, ওপেনিং হারকে 22.47% বাড়িয়ে দিতে পারে।

ইমেল মার্কেটিং

৩. অনলাইন বিক্রয়: 

Shopify রিপোর্ট করে যে একটি কাউন্টডাউন টাইমার এর কারণে ফ্ল্যাশ বিক্রয়ের ফলে রূপান্তর হার 35% বৃদ্ধি পায়।

৪. কার্ট পরিত্যাগ: 

SaleCycle-এর একটি বিশ্লেষণ প্রকাশ করে যে পরিত্যক্ত কার্ট ইমেলগুলিতে পণ্যের স্টক আউট সম্পর্কিত মেসেজ পাঠালে কার্ট লিভের হার 3.06% কমে যায়৷

সেল বৃদ্ধিতে FOMO Marketing কিভাবে করবেন ? 

FOMO marketing সফলভাবে বাস্তবায়ন করতে, নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

১. আপনার অডিয়েন্সকে শনাক্ত করুন: 

আপনার টার্গেটেড অডিয়েন্স কে এবং যাদের কে FOMO ট্রিগারগুলো এফেক্ট করে তাদের খুঁজে বের করুন। প্রয়োজনে Lead Generation এর সাহায্য নিন।

আপনার অডিয়েন্সকে শনাক্ত করুন

২. সঠিক FOMO টেকনিক এপ্লাই করুন: 

আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের সাথে রিলেটেড  টেকনিক গুলো সিলেক্ট করুন। কারন সব রকম কৌশল সব ব্যবসার জন্য উপযুক্ত হবে না। যেমন একটি পণ্যের ক্ষেত্রে আপনি স্টক লিমিটেড অফার দিলে সার্ভিসের বেলায় এই স্ট্রাটেজি এপ্লাই করতে পারবেন না। এক্ষেত্রে টাইম লিমিট এপ্লাই করতে পারবেন। 

সঠিক FOMO টেকনিক এপ্লাই করুন

৩. এক্সামিন এবং অপ্টিমাইজ করুন: 

ক্রমাগতভাবে আপনার FOMO marketing স্ট্যাটেজি গুলো পরীক্ষা করুন এবং আপনার পদ্ধতিকে ভাল করে অপ্টিমাইজ করতে নিয়মিত ফলাফল গুলো বিশ্লেষণ করুন।

এক্সামিন এবং অপ্টিমাইজ করুন

৪. স্বচ্ছতা বজায় রাখুন: 

কাস্টমারের মনে আর্জেন্ট কল অনুভূতি তৈরি করার ক্ষেত্রে ও বিশ্বাস তৈরি করতে আপনার গ্রাহকদের সাথে স্পষ্টভাষী এবং সৎ হন।

স্বচ্ছতা বজায় রাখুন

৫. ROI মেজার করুন: 

আপনার FOMO marketing করার মূল উদ্দেশ্য ফুলফিল হচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করতে আপনার ইনভেস্টের উপর রিটার্নের বিষয়টির ওপর গভীর নজর রাখুন।

ROI মেজার করুন

উপসংহারে, FOMO marketing একটি এডভান্সড Marketing strategie যা হারিয়ে যাওয়ার ভয়কে কাজে লাগিয়ে বিক্রয় বাড়ানোর জন্য ব্যবহার করা হয়। সীমিত সময়ের অফার, কাউন্টডাউন টাইমার, সোশ্যাল প্রুভ এবং আরও অনেক কিছু ব্যবহার করে, ব্রান্ড গুলো তাদের গ্রাহকদের আরো বেশি ইনভলভড করতে পারছে এবং হাই কনভারসন রেট ও ROI ও পাচ্ছে। তাই, FOMO বর্তমান যুগের বিজনেস গুলোর জন্য আশীর্বাদস্বরূপ। 

Don't wait!
Get the expert business advice You need in 2022

It's all include in our newsletter!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More To Explore
কনটেন্ট মার্কেটিং প্ল্যান বিল্ড করার ৭টি স্টেপ
Marketing

কনটেন্ট মার্কেটিং প্ল্যান বিল্ড করার ৭টি স্টেপ

ডিজিটাল যুগে কনটেন্ট মার্কেটিং, অডিয়েন্সের সাথে যুক্ত হতে, ব্র্যান্ড রেপুটেশন তৈরি করতে এবং কনভার্সন ড্রাইভ করতে চাওয়া ব্যবসা গুলোর জন্য একটা ফাউন্ডেশন হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

ফেইসবুক অ্যাডভার্টাইজিংয়ের মাধ্যমে গ্লোবালি প্রোডাক্ট সেল করুন
Marketing

ফেইসবুক অ্যাডভার্টাইজিংয়ের মাধ্যমে গ্লোবালি প্রোডাক্ট সেল করুন

আপনার লোকাল বিজনেসটিকে আরো অ্যাডভান্স করতে, গ্লোবালি প্রোডাক্ট সেল করা একটা গেম-চেঞ্জার হতে পারে এবং ফেসবুক অ্যাডভার্টাইজিং কিন্তু এই পরিবর্তনের একটা গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার। বিশ্বব্যাপী ২.৮ বিলিয়ন