বিটুবি বিজনেসের কমন ভুলগুলো যা সবার জানা উচিত

Share This Post

Share on facebook
Share on linkedin
Share on twitter
Share on email

এটি যদিও একটি সাধারণ শব্দ, কিন্তু মার্কেটে প্রতিটি কোম্পানীর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি শব্দ হচ্ছে “মার্কেটিং”। ব্যবসায়ের প্রকৃত চাবিকাঠি হচ্ছে মার্কেটিং। একবার ভেবে দেখুন তো? আপনার কাছে বেস্ট প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিস আছে যা কিনা আপনার অডিয়েন্সদের সমস্যা দূর করতে এবং তাদের প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাতে সক্ষম। কিন্তু কেউ যদি আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে শুনে না থাকে তাহলে আপনি বিক্রি করতে পারবেন না। এইভাবেই মার্কেটিং আপনার পন্য পরিচিতির কাজ করে থাকে। 

এটি আপনার বিজনেসের উপর যতো প্রভাব ফেলুক না কেন, মার্কেটিং হচ্ছে এক মাত্র জিনিস যা কিনা আপনার প্রোডাক্ট, সার্ভিস, অথবা ব্রান্ডকে পৃথিবীর সামনে  তুলে ধরবে এবং অডিয়েন্সদের তা ক্রয় করতে উৎসাহিত করবে।

কিন্তু বিজনেসে মার্কেটিং সেক্টরে সাফল্য পাওয়া খুব একটা সহজ কাজ না। এমন অনেক কিছু আছে আপনাকে জানতে হবে এমনকি কী পদ্ধতিতে কাজ করলে কাস্টমার আপনার কাছে থেকে কিনতে পজিটিভ ফিল করবে। কিন্তু প্রশ্ন যখন বিটুবি মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে আসে তখন পরিস্থিতি কিছুটা জটিল কারন তখন আপনি যাদের কাছে বিক্রি করছেন তারা আগে থেকেই জানেন যে ব্যবসায় কীভাবে কাজ করে থাকে এবং তাদের ক্রয় করবার ইচ্ছা লাভজনক কিনা তার উপর নির্ভর করে থাকে।

এতো সমস্যার মধ্যে বিটুবি মার্কেটিং এ সফলতা পাওয়া অসম্ভব কিছু না। যদি আপনি বিটুবি মার্কেটিং এর সাধারন কিছু ত্রুটি এড়িয়ে যেতে পারেন।

১. কী সেল করছেন তার সম্পর্কে না জানা

পন্য অথবা সার্ভিস সম্পর্কে না জানা একজন মার্কেটার হিসেবে আপনার দ্বারা একটি সবচেয়ে বড় ভুল হতে পারে। যদিও আপনি অন্য কোন কোম্পানী অথবা গ্রাহকদের কাছে সেল করে থাকেন না কেন। আপনি কি নিয়ে কাজ করছেন এবং কত প্রকার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস আপনি সেল করতে গ্রাহকদের উৎসাহিত করছেন সেই সম্পর্কে ধারনা না থাকা আপনার সকল স্ট্রাটির্জি নষ্ট করতে পারে।

আপনার নির্ধারিত টার্গেট অডিয়েন্সদের খুঁজে বের করতে না পারবার মানে হচ্ছে আপনি সব ভুল সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। আপনার কাস্টমারদের প্রয়োজনীতা কী, তাদের কাছে কীভাবে রিচ করা যায়, এবং কী ধরনের কন্টেন্ট তাদের এঙ্গেজ করে থাকে তা জানতে ব্যর্থ হবেন। আপনার মার্কেটিং স্ট্রাটের্জি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হবে।

সমাধানঃ মার্কেটিং এবং সেলস এর জন্য আপনার টার্গেট অডিয়েন্সদের জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই দুইটি পার্ট যদি নির্ভুল থাকে তাহলেই ব্যবসায়ে সাফল্য সম্ভব। এই ধরনের ভুল না করতে চাইলে আপনি কী সেল করতে চাইছেন তার প্ল্যান করতে হবে। আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে বিশেষত বিটুবি কোম্পানীগুলোর ক্ষেত্রে আমাদের মূল ক্রেতা তারাই যারা কিনা আপনার টার্গেট অডিয়েন্সদের ডাটার সাথে যুক্ত আছে এবং এই মূল ক্রেতাগুলোর মধ্য অনেকে পারচেজের জন্য সিদ্ধান্ত নিবে তাই তাদের প্রতি নজরদারি রাখা জরুরী। 

২. বেশী সময় নষ্ট না করা

আপনি কী ইন্ডাস্ট্রি থেকে এসেছেন সেটা বিষয় না, কারন আপনি জানেন যে সেখানে আগে থেকেই প্রতিযোগিতা রয়েছে। আপনি বিশ্বাস করুন বা না করুন, আরো বহু উদ্যোক্তা রয়েছে যারা কিনা আপনার বিজনেস আইডিয়াকে সুযোগ হিসেবে দেখছে এবং সেটা স্বাভাবিক।

যাইহোক বিষয় হচ্ছে আপনি কী কৌশল ব্যবহার করছেন প্রতিযোগিতা নিয়ে টিকে থাকবার জন্য। কিন্তু আপনি যদি সেটা না করে থাকেন, তাহলে আপনার কাস্টমার আপনার কাছে পৌছাবে না কারন আপনার প্রতিযোগীরা প্রতিনিয়ত এগিয়ে থাকবার চেষ্টা করে যাচ্ছে।

তার মানে এই দাড়াচ্ছে যে আপনার যখন কোন পটেনশিয়াল কাস্টমার কোন প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিস পারচেজের জন্য খুঁজে বেড়াচ্ছে তখন উচিত আপনার কোম্পানীকে সাবার সামনে থাকা এবং তাদের জানানো কীভাবে আপনার প্রোডাক্ট তাদের সমস্যা সমাধানে সক্ষম।

সমাধানঃ প্রথমত  আপনার অফলাইন ও অনলাইনে অ্যাক্টিভ থাকবার সময় বাড়াতে হবে যেন আপনার টার্গেট অডিয়েন্সদের খুঁজে বের করতে পারেন এবং তাদের কী ধরণের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস প্রয়োজন তা বের করতে পারা। এছাড়াও আপনার কোম্পানীর নিজ থেকে পটেনশিয়াল কাস্টমার বের করতে হবে অথবা তাদের এমন তথ্য দিতে যা তারা জানে না, তারপর তাদের সেই সমস্যার সমাধান দিন যা আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিসে রয়েছে।

৩. আপনার ক্যাম্পেইনকে টেস্ট না করা

প্রতিটি আইটি স্পেশালিস্ট যে কোন কাজের গুরুত্ব বোঝার জন্য সবার সামনে তুলে ধরবার আগে পরীক্ষা করে নেয়। যদি আপনার মার্কেটিং ক্যাম্পেইন অতটা টেকনিক্যাল না হয়, তারপরও আপনাকে ক্যাম্পেইন পরীক্ষা করতে হবে কারণ মার্কেটে তা কতটা কার্যকর জানার জন্য।

এই ধরণের পরীক্ষাকে এড়িয়ে যাবা একটি কমন ভুল যা বহু কোম্পানী করে থাকে, কোম্পানীর প্রোডাক্ট দ্রুত বাজারে নিয়ে আসতে অথবা লক্ষ্যের দিকে তাড়াতাড়ি যাবার জন্য। এমনকি অনেকে ব্রান্ড টেস্টিং প্রসেসে যেতে চায় না কারন তাদের কাছে মনের হয় একটি বৃথা ক্যাম্পেইনে সময় নষ্ট না করে তা ইনভেন্টিং রিসোর্সে খরচ করা ভালো।

সমাধানঃ আপনার মার্কেটিং ক্যাম্পেইন টেস্ট করুন। যে ধরনেরই কনটেন্ট বা স্ট্রাটের্জি ব্যবহার করে থাকেন না কেন। রিসোর্স ইনভেস্ট করবার আগে অবশ্যই যাচাই করুন।

৪. আপনি কি চান সেটা আপনার অডিয়েন্সদের জানতে না দেয়া

আপনার অডিয়েন্সদের অবশ্যই জানাতে হবে যে আপনি কী চান যখন আপনার অডিয়েন্সরা আপনার কনটেন্টে এঙ্গেজ হবে (যে কোন ধরণের কনটেন্ট দিয়ে রিচ হোক না কেন)। অন্যদিক দিয়ে বলা যায় আপনাকে কলস-টু-অ্যাকশন ব্যবহার করতে হবে। উদাহরন হিসেবে, যদি একজন পটেনশিয়াল কাস্টমার আপনার কপি বা অ্যাড দেখতে কিছু সেকেন্ড বা মিনিট ব্যয় করে থাকে তাহলে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস কিনতে কাস্টমার আগ্রহী হয়েছে। কিন্তু তাকে যদি আপনি কোন কন্টাক্ট ডিটেইলস না দিয়ে থাকেন তারা রিচ করতে পারবেন না।

এইভাবেই কলস-টু-অ্যাকশন কাজ করে থাকে। ইহা আপানার পটেনশিয়াল কাস্টমারদের অ্যাকশনে নিয়ে যায় যেখান আপনি তাদের নিয়ে যেতে চান, যেখানে আপনি আরো ডিটেইলসের জন্য কন্টাক্ট, ষ্টোর ভিজিট বা পারচেজ করতে উৎসাহিত করবেন।

সমাধানঃ পরিষ্কার কলস-টু-অ্যাকশন ব্যবহার করুন। সবচেয়ে ভালো হয় যদি স্প্যাম টাইপের সিটিএ যেমন “ক্লিক হেয়ার” এগুলো থেকে বিরত থাকলে। আরেকটু পার্সোনাল এবং বিস্তারিত সিটিএ ব্যবহার করুন যেমন “গেট এ অফার হেয়ার”।

৫. কোম্পানীর উপর বেশী গুরুত্ব দেয়া

বিটুবি মার্কেটিং ইস্যুতে যত ধরনের ভুল রয়েছে তার মধ্য সবচেয়ে বড় ভুল হচ্ছে নিজ কোম্পানীর উপর বেশী ফোকাস হওয়া। অনেক কোম্পানী রয়েছে যারা কিনা কীভাবে তারা সার্ভিস দিয়ে উপরে থাকা যায় তা চিন্তা করে। তাই এই দিক থেকে আপনার কোম্পানী খুবই ভালো, কিন্তু আসলেই কী ইহা আপনার কোম্পানীর উদ্দেশ্য।

যখন কোন কাস্টমার আপানার সাইটে আসবে তখন একটি বিষয় শুধু মাথায় আসবে “কীভাবে তাদের সাহায্য করা যায়।” তারা জানতে চাইবে কীভাবে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস আপনার সমস্যা দূর করবে। 

সমাধানঃ এই সমস্যার সবচাইতে সহজ সমাধান হচ্ছে বিটুবি মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে আপনার সাইটে পূর্বের কমেন্টে যাওয়া এবং সেখানে আপনার অডিয়েন্সদের মতামতগুলো পর্যালোচনা করা। আপনি কী কাস্টমারদের সমস্যাগুলো ধরে তাদের সামনে তুলে ধরতে পারছেন? যদি সেটা সম্ভব না হয় তাহলে 

আপনার ব্যবসা কীভাবে তাদের সমস্যার সমাধান দিবে তা বর্ননা করুন।

তাই উপরে উল্লেখিত সমস্যা ও তাদের সমাধানসহ বর্ননা করা হয়েছে যার মাধ্যমে আপনারা প্রতিষ্ঠানের সমস্যাগুলো খুঁজে বের করতে পারেন এবং সেই সমাধানের মাধ্যমে সঠিক পদক্ষেপ নিতে পারেন। যার কারণে আপনার মার্কেটিং স্ট্রাটের্জি ও ক্যাম্পেইন কে একটি রাইট ডাইরেকশন প্রোভাইড করতে পারেন।  

Subscribe To Our Newsletter

Get updates and learn from the best

More To Explore

Jatri
Startup Story

বাংলাদেশী প্রথম ডিজিটাল বাস ট্র্যাকিং এবং টিকিটিং প্লাটফর্ম ‘ যাত্রী ‘

প্রায় ৪৭ শতাংশ যাত্রী প্রতিদিন বাসে যাতায়াত করে। অনির্ধারিত বাস, দীর্ঘ সারি ধরে বাসের জন্য দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করা এবং লাইন ধরে বাসের টিকেট কাটা এবং