অনলাইন স্টোর মেইনটেইনেন্স : টিপস এবং গাইড

অনলাইন স্টোর মেইনটেইনেন্স: টিপস এবং গাইড
Share This Post

অনলাইন স্টোর মেইনটেইনেন্স একটি চলমান প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে আপনি আপনার অনলাইন ব্যবসাকে সঠিকভাবে পরিচালনা করে সাফল্যের দিকে নিয়ে যেতে পারেন। একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট সুরক্ষিত, আপ-টু-ডেট এবং সম্পূর্ণরূপে কার্যকরী করে রাখতে আপনাকে অবশ্যই এটি নিশ্চিত করতেই হবে।  

অনলাইন স্টোর মেইনটেইনেন্স: টিপস এবং গাইড

আপনার ওয়েবসাইটের মেইনটেইনেন্স মানে শুধু ওয়েবসাইটের নতুন রং সিলেক্ট করা বা কোন প্রোডাক্ট সেল করা মানেরই নয়। কাস্টমারদের বোঝার সুবিধার্থে প্রোডাক্টের সকল তথ্য সুন্দরভাবে উপস্থাপনা করা, হ্যাকারদের থেকে আপনার স্টোরের ওয়েবসাইটটি রক্ষা করা এবং মার্কেটিং টিম তাদের কাজ করছে কিনা তা নিশ্চিত করা ইত্যাদি কিছুই এর মধ্যে। আজ এমনই কিছু টিপস এবং গাইড সম্পর্কে জানানোর চেষ্টা করব যা আপনার অনলাইন স্টোর মেইনটেইনেন্সে কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে। 

লক্ষ্য নির্ধারণ করা :

আপনি কোন উদ্দেশ্যের জন্য আপনার ওয়েবসাইটটি তৈরি করেছেন তার উদ্দেশ্য যাই হোক না কেন আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য একটি স্পষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। 

আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বাড়াতে চান, তাহলে আপনাকে এসইও, ওয়েব ডিজাইন অথবা আপনার সিস্টেমগুলোকে আরও উন্নত করতে হবে যেকোনো ধরনের প্রোডাক্ট সেল করার ক্ষেত্রে। আপনার ওয়েবসাইটের কোন ধরনের পরিবর্তনের প্রয়োজন রয়েছে কিনা তা লক্ষ্য করার জন্য নিয়মিত আপনার ওয়েবসাইটটি পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

লক্ষ্য নির্ধারণ করা

সুতরাং, আপনার ওয়েবসাইটের কোন অংশের উন্নতির প্রয়োজন তা বোঝার জন্য আপনার ওয়েবসাইটের জন্য স্পষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। এই পয়েন্টটিকে উপেক্ষা করবেন না, কারণ এটি ওয়েবসাইট রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ টিপসগুলোর মধ্যে একটি।

একটি ওয়েবসাইট মেইন্টেনেন্স সিডিউল তৈরি করুন :

একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আপনার অনলাইন স্টোর এর ওয়েবসাইটটিকে সব সময় মনিটর করা প্রয়োজন । এছাড়াও প্রতিনিয়ত ওয়েবসাইটটিকে আপডেট করার প্রয়োজন পড়ে এবং খেয়াল রাখতে হয় ওয়েবসাইটে কোন ধরনের প্লাগইন, এরর, অথবা অন্যান্য বিভিন্ন ইস্যু তৈরি হয়েছে কিনা তার উপরে। 

আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ট্র্যাফিকের উপর ভিত্তি করে সপ্তাহে দুবার এমনকি প্রতিদিন ঘন ঘন আপনার ওয়েবসাইটটিকে পর্যবেক্ষণ করতে পারেন। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়, বিশেষ করে যখন আপনার একটি মাত্র  অনলাইন স্টোরের ওয়েবসাইট থাকে, কারণ এটি আপনার আয়ের প্রধান উৎস এবং এতে প্রচুর সেন্সেটিভ ডেটা এবং কাস্টমারদের ইনফর্মেশন  থাকে৷ 

একটি ওয়েবসাইট মেইন্টেনেন্স সিডিউল তৈরি করুন

তাই আপনি একটি ওয়েবসাইট মেইন্টেনেন্স সিডিউল তৈরি করতে পারেন অথবা আপনি  আপনার ক্যালেন্ডারে একটি সময়সূচী সেট করতে পারেন। যা আপনাকে সাহায্য করবে সঠিক সময়ে আপনার ওয়েবসাইটটিকে মনিটর এবং আপডেট করার ক্ষেত্রে। 

কনটেন্ট আপলোড করতে ভুলবেন না :

আপনার অনলাইন স্টোর এর ওয়েবসাইটির জন্য কন্টেন্ট আপডেট করা অত্যন্ত জরুরি একটি বিষয়। কারণ গুগল নিয়মিত আপডেট করা ওয়েবসাইটগুলোকে অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। 

এছাড়াও, এটি কাস্টমারদের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ কারন তারা সব সময় নতুনত্ব পছন্দ করে। নিয়মিত বিভিন্ন বিষয়গুলো আপলোড করা হলে আপনার ওয়েবসাইটটি কাস্টমারদের পছন্দের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে পারবে খুব সহজেই। তাই বিভিন্ন বিষয়কে ভিত্তি করে কন্টেন্ট আপলোড করার চেষ্টা করুন যা কাস্টমারদের আকৃষ্ট করতে বাধ্য করবে। 

কনটেন্ট আপলোড করতে ভুলবেন না

কনটেন্ট আপলোড করতে ভুলবেন না কারণ এটি আপনাকে সাহায্য করবে আপনার ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্কিং বৃদ্ধি করার ও কাস্টমারদের আকর্ষণ বাড়ানো ক্ষেত্রে।

কাস্টমারদের ফিডব্যাকের প্রতি লক্ষ্য রাখুন :

আপনার অনলাইন স্টোর এর ওয়েবসাইটে কাস্টমারদের ফিডব্যাক নেয়ার চেষ্টা করুন। এটি আপনাকে বিভিন্নভাবে সাহায্য করবে। কারণ কাস্টমারদের প্রতিক্রিয়ার উপর ভিত্তি করে আপনি খুব সহজেই বুঝতে পারবেন আপনার ব্যবসায়ের উন্নতির জন্য কি করতে হবে। যেমন ফিডব্যাকের ভিত্তিতে কাস্টমারদের সন্তুষ্টির জন্য উন্নত মানের প্রোডাক্ট সরবরাহ করার চেষ্টা করা। 

কাস্টমারদের ফিডব্যাকের প্রতি লক্ষ্য রাখুন

এজন্য আপনার কাস্টমাররা আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে কী ভাবছেন তা জানতে আপনি আপনার অনলাইন স্টোর এর ওয়েবসাইটটিতে ফিডব্যাকের একটি অপশন রাখতে পারেন। যেখানে কাস্টমাররা তাদের মতামত তুলে ধরতে পারবে এবং চেষ্টা করুন প্রতিনিয়ত কাস্টমারদের ফিডব্যাক গুলোকে পর্যবেক্ষণ করার। এতে করে আপনি যেমন কাস্টমারদের মন রক্ষা করতে পারবেন তেমনি ব্যবসায়িক উন্নতির জন্য আপনাকে কোন দিকগুলো পরিবর্তনের প্রয়োজন তাও সহজে জানতে পারবেন। 

টার্গেট অডিয়েন্স সিলেক্ট করা :

টার্গেট অডিয়েন্স সিলেক্ট করা খুব নগণ্য একটি বিষয় হলেও এটি ওয়েবসাইটের কর্মক্ষমতার উপর একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে।

আপনি যখন আপনার ব্যবসা শুরু করেছিলেন, আপনি সম্ভবত আপনার ভবিষ্যত কাস্টমার  কারা হতে পারে তা খুঁজে থাকেন। আর সেই টার্গেট অডিয়েন্সের কথা মাথায় রেখেই আপনি আপনার বিজনেসের মূল লক্ষ্য নির্ধারণ করেন। অডিয়েন্সের কথা বিবেচনা না করলে আপনি কখনোই আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বৃদ্ধি করতে পারবেন না। যা কিনা আপনার বিজনেসের সাফল্যের পথে বাধা সৃষ্টি করবে। 

টার্গেট অডিয়েন্স সিলেক্ট করা 

আপনি যখন অডিয়েন্সদের নির্বাচন করার জন্য রির্সাচ করবেন তখন আপনি জানতে পারবেন কোন ওয়েবসাইটের বৈশিষ্ট্যগুলো তাদের বেশি প্রয়োজন, তারা কী পছন্দ করে, কী করে না এবং আরও অনেক মূল্যবান তথ্য সম্পর্কে। এই সমস্ত তথ্য আপনাকে বুঝতে সাহায্য করবে যে কোন প্লাগইন, বৈশিষ্ট্য এবং থিমগুলো সংযুক্ত করতে হবে অথবা কোন বিষয়গুলো বাদ দেয়া দরকার অথবা কোন জিনিস বিবেচনায় রাখলে আপনার ওয়েবসাইট এর ট্রাফিক বৃদ্ধি পাবে ইত্যাদি। তাই টার্গেট অডিয়েন্স সিলেক্ট করা অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। 

ওয়েব ডিজাইন আপলোড করতে ভুলবেন না :

আপনার অনলাইন স্টোর এর ওয়েবসাইটটিকে সাজিয়ে তুলতে আপনাকে অবশ্যই ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে হবে। কারণ ওয়েব ডিজাইন শুধুমাত্র কাস্টমারদের আগ্রহী করা বা সন্তুষ্টিকেই প্রভাবিত করে না বরং এটি ওয়েবসাইটের কর্মক্ষমতাকেও প্রভাবিত করে। আপনার ওয়েবসাইটটিতে যদি অনেক বেশি অ্যানিমেশন বা অন্যান্য নানা ধরনের ডিজাইনের উপাদান থাকে তবে এসব জিনিস আপনার ওয়েবসাইটটিকে অনেক বেশি স্লো করে দিবে। এছাড়াও সার্চ ইঞ্জিনগুলো ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটটিকে উচ্চ র‌্যাঙ্কে নাও রাখতে পারে। 

ওয়েব ডিজাইন আপলোড করতে ভুলবেন না

তাই মনে রাখবেন প্রতিযোগিতামূলক এযুগে আপনার কাস্টমারদের পছন্দ বা চাহিদার ভিত্তিতে আপনাকে সময়ে সময়ে ওয়েব ডিজাইন পর্যালোচনা করতে হবে আর প্রয়োজানুসারে ওয়েব ডিজাইন আপলোড করতে হবে।

কপিরাইট, লিগাল টার্মস এন্ড কন্ডিশন আপলোড করা :

বেশিরভাগ অনলাইন স্টোর এর ওয়েবসাইটই তাদের ওয়েবসাইট চালু করার সময় বিভিন্ন ধরনের আইনি শর্তাবলী প্রকাশ করে এবং পরবর্তীতে সেগুলো ভুলে যায়। তবে এটি আপনাদের বড়সড় একটি ভুল। কারণ আইন এবং বিধানগুলো সময়ে সাথে সাথে পরিবর্তিত হয়। এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনার ওয়েবসাইটের শর্তাবলী সমস্ত রাষ্ট্র এবং আন্তর্জাতিক আইনের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হওয়া।

কপিরাইট, লিগাল টার্মস এন্ড কন্ডিশন আপলোড করা 

আপনি যখনই কোন বিষয়বস্তু ওয়েবসাইটে আপডেট করবেন সাথে সাথে এই পৃষ্ঠাটি আপডেট করার জন্য সুপারিশ করা হয়। এতে কপিরাইটের বা অন্যান্য সমস্যার অধীনে রয়েছে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করা হয়। আপনার ওয়েবসাইটের কপিরাইট এবং গোপনীয়তার নীতিগুলো আপনার ওয়েবসাইট এবং আপনার কাস্টমারদের অধিকার সুরক্ষিত করছে কিনা তা নিশ্চিত করতে সাহায্য করে। তাই আপনাকে একটি নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে প্রতিনিয়ত এসব বিষয় পর্যালোচনা করতে হবে। 

Don't wait!
Get the expert business advice You need in 2022

It's all include in our newsletter!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More To Explore
ছাত্রজীবনে যে স্কিলগুলো থাকলে প্রফেশনাল লাইফ ইফেক্টিভ হবে
Marketing

ছাত্রজীবনে যে স্কিলগুলো থাকলে প্রফেশনাল লাইফ ইফেক্টিভ হবে

আজকের এই প্রতিযোগিতামূলক প্রোফেশনাল ওয়ার্ল্ডে, সাফল্য শুধুমাত্র একাডেমিক কৃতিত্বের উপর নির্ভর করে না। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ কর্তারা এখন কন্টিনিউয়াসলি স্কিলড এবং সেন্টার্ড ব্যক্তিদের ভ্যালুকে বেশি প্রাধান্য

প্রোডাক্ট ম্যানেজার কারা, বাংলাদেশে এই পেশার ডিমান্ড কেমন?
Uncategorized

প্রোডাক্ট ম্যানেজার কারা, বাংলাদেশে এই পেশার ডিমান্ড কেমন?

প্রোডাক্ট ম্যানেজার একটি পণ্যের সমগ্র লাইফসাইকেল এর অর্কেস্ট্রেটর হিসাবে নিজেকে প্রেজেন্ট করে এবং ওভারঅল সাফল্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই প্রোফেশনালরা বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে